বিমান চালালেন তাসমিন, চড়লেন প্রধানমন্ত্রী |
মঙ্গলবার , ২০ নভেম্বর ২০১৮




বিমান চালালেন তাসমিন, চড়লেন প্রধানমন্ত্রী



নিউজ সময় : 06/05/2017


নিউজ ডেস্ক: কক্সবাজার বিমানবন্দরে ফ্লাইট থেকে নামার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ক্যাপ্টেন তাসমিন দোজাসহ অন্যরা
বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের আধুনিক সুপরিসর বোয়িং ৭৩৭-৮০০ উড়োজাহাজ চড়ে কক্সবাজার সফর করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এই ফ্লাইটের মধ্য দিয়ে কক্সবাজার বিমানবন্দরের সম্প্রসারিত রানওয়েতে বড় আকারের উড়োজাহাজ চলাচল শুরু হল। প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী বোয়িং ৭৩৭-৮০০ উড়োজাহাজটি চালিয়েছেন বিমানের নারী ক্যাপ্টেন তাসমিন দোজা।



শনিবার তাসমিন পরিচালিত ফ্লাইটে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে সকাল ১০টায় কক্সবাজারের পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী। বিকেলে একই উড়োজাহাজে কক্সবাজার থেকে তাকে নিয়ে ঢাকায় ফেরেন তাসমিন।

এ সফরে মেরিন ড্রাইভ, কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ, দুটি এলএনজি টার্মিনালের ভিত্তিফলক উন্মোচনসহ বেশ কয়েকটি প্রকল্পের উদ্বোধন ও ভিত্তিফলক উন্মোচন করেন প্রধানমন্ত্রী।


দেশের রাষ্ট্রায়ত্ত এয়ারলাইন্স বিমান বাংলাদেশে পাইলট রয়েছেন ১৪০ জন, এর মধ্যে নারী পাইলট ৯ জন।

পুরুষদের মতো তারাও সাফল্যের সঙ্গে পালন করছেন পেশাগত দায়িত্ব। বাংলাদেশ বিমানের এই নয় জন নারী পাইলট হলেন ক্যাপ্টেন তাসমিন দোজা, তানিয়া রেজা, আলিয়া মান্নান, শাহানা বেগম, ফার্স্ট অফিসার আনিতা রহমান, মুনজারিন রাইয়ান, শুমায়লা সিদ্দিকা হোসেন, ফারিয়েল রহমান ও অন্তরা।


শনিবার সকাল ১০টায় কক্সবাজার বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে পৌঁছায় বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বোয়িং ৭৩৭-৮০০ মডেলের উড়োজাহাজ। প্রধানমন্ত্রী কক্সবাজার বিমানবন্দরে বড় আকারের উড়োজাহাজ চলাচল উদ্বোধন করেন।


এ প্রসঙ্গে ক্যাপ্টেন তাসমিন দোজা বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কক্সবাজারে ৭৩৭-৮০০ উড়োজাহাজ অপারেট করেছি। খুব ভালো লেগেছে।’


বিমান সূত্রে জানা গেছে, কক্সবাজারে ড্যাশ-৮ কিউ-৪০০ উড়োজাহাজ দিয়ে ফ্লাইট পরিচালনা করে বিমান। অন্য এয়ারলাইন্সগুলোও ছোট উড়োজাহাজ দিয়ে কক্সবাজার রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করে। কক্সবাজার বিমানবন্দরে উন্নয়নের ফলে বড় উড়োজাহাজ অবতরণ করতে সক্ষম হয়েছে।

প্রথমে বিমান বোয়িং ৭৩৭-৮০০ উড়োজাহাজ দিয়ে কক্সবাজার রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করবে। এ উড়োজাহাজটি ১৬২ জন যাত্রী বহরে সক্ষম।


এ প্রসঙ্গে বিমানের মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) শাকিল মেরাজ বলেন, কক্সবাজার রুটে আধুনিক ও বৃহৎ বোয়িং ৭৩৭-৮০০ উড়োজাহাজ দিয়ে ফ্লাইট শুরু হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধনী ফ্লাইটে ভ্রমণ করেছেন। এখন থেকে এ উড়োজাহাজ দিয়ে কক্সবাজারে সপ্তাহে একটি ফ্লাইট চলবে।


সিভিল এভিয়েশন সূত্রে জানা গেছে, ব্রিটিশ শাসনামলে নির্মাণ করা কক্সবাজার বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে রূপান্তর করতে উন্নয়ন কাজ চলমান রয়েছে।
কক্সবাজার বিমানবন্দরে রানওয়ের দৈর্ঘ্য ৬৭৭৫ ফুট থেকে ৯০০০ ফুট করা হয়েছে।

রানওয়ের প্রস্থ ১৫০ ফুট থেকে ২০০ ফুট করা হয়েছে। এছাড়া, এয়ারফিল্ড লাইটিং সিস্টেম, ফায়ার ফাইটিংসহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি সংযোজিত হচ্ছে। ২০১৮ সালে কক্সবাজারে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট শুরু হবে।


বিমানের মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) শাকিল মেরাজ বলেন, দেশের পর্যটনের জন্য কক্সবাজার গুরুত্বপূর্ণ। বিদেশি পর্যটকরা সরাসরি কক্সবাজারে আসতে পারলে পর্যটন খাতে আয় বাড়বে।


উৎসঃ banglatribune

Loading...
loading...



Editor : Zakir Hossain,
Office : Jeddah,Kilo3,Old Makkah Road Behind Al Rajhi Bank
Email : [email protected]